কুমিরের হাত থেকে গোরুকে বাঁচাতে নিজের জীবন বাজি রেখে ঝাঁপিয়ে পড়ে মুসলিম যুবক, তারপর যা হলো

বন্ধুরা আজকের রাজনৈতিক যুগে ধর্ম-বর্ণের শিক্ষিত লোকেরা সোশ্যাল মিডিয়ায় একে অপরকে ছোট করে থাকে এবং তাদের ভাষার সীমা লংঘন করে। কিন্তু বর্তমানে এমন একটি ঘটনা ঘটেছে, সেসব বুদ্ধিমানদের মুখে কুলুপ এঁটে দিয়েছে।

বন্ধুরা, সময় এত দ্রুত পরিবর্তিত হচ্ছে যে, আমরা কল্পনাও করতে পারি না। তাই বন্ধুরা, এই নিবন্ধটির সাহায্যে আমরা আপনাকে এই বার্তা দিতে চাই যে,যদি আপনার মধ্যে মানবতা থাকে, আপনি আপনার হৃদয় পরিবর্তন করতে পারেন এবং আপনার হৃদয়ের কথা শুনতে পারেন।

সঠিক ও ন্যায় এর সিদ্ধান্ত নিজে নিন, অন্যের কথা শুনে কোনো সিদ্ধান্ত নেবেন না বা বিচার করবেন না। মানবতার সেরা দৃশ্য দেখা গেল রাজস্থানের কোটায়, যেখানে জলাভূমিতে আটকে পড়া দুটি গোরুকে বাঁচাতে গিয়ে নিজের জীবন বাজি রেখে ছিল এক মুসলিম যুবক।

বিষয়টি কোটা শহরের স্টেশন এলাকায়, এখানে খনন কাজ চলছিল। উদ্ধারকৃত যুবক ফিরদৌস ঘোরি জানান, তিনি তার বন্ধু দীপক নামদেব, ধর্মেন্দ্র ভায়া ও মমতাজ আলীকে নিয়ে ঘটনাস্থল দিয়ে যাচ্ছিলেন এবং খালের জলাভূমিতে দেখলেন গোরুগুলি আটকে আছে।

তাদের বাঁচাতে গিয়ে তিনি সেখানে উপস্থিত অন্যান্য মানুষের কাছে সাহায্য চাইতে থাকেন। খালে কুমিরের কথা উল্লেখ করে, লোকজন সাহায্য করতে অস্বীকার করে। এদিকে একজন জে.সি.বি (লোডার) আই. ফিরদৌস ঘোরি ও তার বন্ধু দীপক নামদেব জে.সি.বি ঝুলিয়ে অপর প্রান্তে যায়। গোরুগুলোকে খালের পাড়ে নিয়ে আসা হয়। দড়ি দিয়ে বেঁধে জে.সি.বি-র সাহায্যে নিরাপদে বের করে আনা হয় গোরুগুলোকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button