IAS পরীক্ষার ইন্টারভিউ এর কোশ্চেন, “এমন একটা জিনিস যা একমাস পর আসে, যখন আসে চব্বিশ ঘন্টার জন্য থাকে?” উত্তর জানলে চমকে যাবে

ইন্টারভিউ চলাকালিন আমরা সবসময় নানান প্রশ্নের সম্মুখিন হয়ে থাকি। দৈনন্দিন জীবনে চলার পথে পড়াশুনোর বাইরেও আমাদেরকে অনেক এমন প্রশ্নের সামনা সামনি হতে হয় যার উত্তর আমাদের সকলেরই অজানা, যার উত্তর দিতে গেলে আমাদের সকলকেই ভাবতে হয়। কিন্তু সব সময় আমরা এই সব প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেস্টা করতে থাকি। কখনই কোন কাজে হার মেনে নেওয়া উচিত নয় সব সময় চেষ্টা করা উচিত। কিন্তু এক্ষেত্রে মামলা যদি আইএএস পরীক্ষার মতো শক্ত যায়গার পরীক্ষা হয়ে থাকে, তবে সেখানে উত্তর দিয়ে আসাটা একটু চাপেরই বলা যাতে পারে। কারণ সেখানের ইন্টারভিউ কোশ্চেনে এরকমই কৌশল ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

প্রসঙ্গত, এরকমই একবার এক আইএএস পরীক্ষার এক ইন্টারভিউতে একটি মেয়েকে জিঞ্জাসা করা হয় এরকম বিদঘুটে প্রশ্ন। প্রশ্নটি শুনে মেয়েটি প্রথমদিকে হতভম্ভ হয়ে গেলেও, পরবর্তীকালে অবশ্য উত্তর দিতে সক্ষম হয় সে।

প্রশ্নটি ছিলো এমন একটি জিনিস যা “একমাস পর আসে কিন্তু যখন আসে চব্বিশ ঘন্টার জন্য থাকে, জিনিসটি কি?” প্রশ্নটি শুনতে খুব জটিল মনে হলেও উত্তরটি কিন্তু খুবই সোজা। তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে বুদ্ধির শরণাপন্ন হতে হবে আর সেটাই করেন মেয়েটি। বুদ্ধির জোরেই তিনি প্রশ্নের উত্তর দেন ‘তারিখ’। কারণ যেকোন তারিখ একমাস পরেই আসে। আর যখন আসে একটা দিন অর্থাৎ চব্বিশ ঘন্টার জন্য থেকে যায়।

এছাড়াও IAS পরীক্ষার আরও কিছু কোশ্চেন হল:

১.প্রথম প্রশ্ন ছিল-মেয়েদের কোন জিনিস টি আমরা খেতে পারি?

-খুব সহজ এই উত্তর একটু ঠান্ডা মাথায় বুদ্ধির কৌশলে উত্তর দেওয়া যায়।কিন্তু বেশিরভাগ জন বিচলিত হয়ে এটাই ভেবেছেন এ আবার কেমন ধরনের প্রশ্ন ।আসলে এর উত্তর হবে “Lady Finger” যার বাংলা অর্থ ঢ্যাড়শ।কিন্তু english থেকে বাংলার আক্ষরিক অর্থ করলে হয় lady অর্থাত মহিলা আর finger অর্থাত আঙুল।তাই উত্তরটি এটা হবে।

২.দ্বিতীয় প্রশ্ন ছিল কোন মাসে মানুষ সবচেয়ে কম ঘুমায়?

-এর উত্তর হবে ফেব্রুয়ারি মাসে।তার কারণ হল প্রতি মাসের তুলনায় এ মাসে সবচেয়ে কম দিন থাকে তাই অন্য মাসের তুলনায় এ মাসে সকলে কম ঘুমায়।

৩.মেয়েদের শরীরে কোন অঙ্গ সবচেয়ে বেশী আকর্ষণীয়?

-এর উত্তর হবে যেখানে সবচেয়ে বেশি রক্ত চলাচল করে সেই অঙ্গ।

৪..চার নম্বর প্রশ্ন ছিল চীনের মানুষ জাপানের মানুষের চেয়ে বেশী ভাত খায় কেন?

-এই উত্তরের জন্য একটু সাধারন জ্ঞান আর একটু বুদ্ধির দরকার ।আমরা সকলেই জানি যে চীনের জনসংখ্যা বেশী জাপানের চেয়ে।আর জনসংখ্যা যেখানে বেশী হবে সেখানে খাদ্যও বেশী পরিমান লাগবে।জনসংখ্যা বেশী হওয়ার জন্য চিনের মানুষ জাপানের তুলনায় খাদ্য বেশী খায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button