‘লঙ্কা’ দেখলে নাক সিঁটকোন কিন্তু জানেন স্বাস্থ্যের পক্ষে ‘কাঁচা লঙ্কার’ এই টোটকা কত উপকারী ?

কেউ কেউ খেতে খেতে ২-৩ টে উড়িয়ে দেন, তো কেউ ধারে কাছেও ঘেঁষতে চান না। কাঁচা লঙ্কাকে নিয়ে এমনই পছন্দ এবং অপছন্দের একটা আবহ থাকলেও ঝাল ঝাল এই ফলটি না খেলে যে কতটা ক্ষতি হয় শরীরের তা কেউ আন্দাজও করে উঠতে পারবেন না। তাই তো এই প্রবন্ধে আজ কাঁচা লঙ্কার নানাবিধ আজানা উপকারিতার বিষয়ে আলোচনা করা হল, যা পড়তে পড়তে এই নতুন বছরের শুরু তে আপনার আক্কেল যে একেবারে গুরুম হয়ে যাবে, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই।

আপনি কি নতুন বছরে ওজন কমাতে বদ্ধপরিকর? তাহলে তো প্রতিদিন লঙ্কা খাওয়া মাস্ট! আসলে কাঁচা লঙ্কা সবজি না ফল এই নিয়ে বিতর্ক থাকলেও বিশেষজ্ঞরা একটা বিষয় মেনে নিয়েছেন যে প্রতিদিন কাঁচা লঙ্কা খেলে হজম ক্ষমতা এত মাত্রায় বৃদ্ধি পায় যে ওজন বৃদ্ধির আশঙ্কা একেবারে কমে যায়। সেই সঙ্গে শরীরে জমে থাকা ফ্যাট সেলেরা এত মাত্রায় গলতে শুরু করে যে ওজন নিয়ন্ত্রণে চলে আসতে একেবারেই সময় লাগে না।

২.ক্যান্সার রোগকে দূরে রাখে:আই সি এম আর এবং কেন্দ্রীয় সরকারের পরিসংখ্যানের দিকে নজর ফেরালে এই বিষয়ে কোনও সন্দেহ থাকে না যে গত কয়েক দশকে আমাদের দেশে ক্যান্সার রোগের প্রকোপ মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে কাঁচা লঙ্কা খাওয়ার প্রয়োজনও যে বেড়েছে, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। আসলে রাজের ডায়েটে কাঁচা লঙ্কাকে রাখলে শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের মাত্রা বাড়তে শুরু করে। এই উপাদানটি দেহে উপস্থিত টক্সিক উপাদানদের বের করে দিতে একেবারেই সময় নেয় না। ফলে ক্যান্সার সেল জন্ম নেওয়ার আশঙ্কা একেবারে কমে যায়। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে প্রস্টেট ক্যান্সারকে দূরে রাখতে কাঁচা লঙ্কা বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

৩. হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায়:বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে কাঁচা লঙ্কার অন্দরে উপস্থিত একাধিক উপাকির উপাদান রক্তে উপস্থিত খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে ফেলতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। ফলে হার্টের কোনও ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা একেবারে কমে যায়। সেই সঙ্গে ফাইব্রিনোলেটিক অ্যাকটিভিটিকে বাড়িয়ে দিয়ে মস্তিষ্কে যাতে ব্লাড ক্লট না হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখে লঙ্কা। ফলে স্ট্রোকের আশঙ্কা একেবারে কমে যায়। তাই তো পরিবারে যদি হার্টের রোগের ইতিহাস থাকে, তাহলে কাঁচা লঙ্কা খেতে ভুলবেন না যেন!

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button