পাকস্থলীর ক্ষত বা পেপটিক আলসার যাতে না হয় তার জন্য সামান্য কটি জিনিস মেনে চলুন।

পাকস্থলীর ক্ষত একটি সাধারণ সমস্যা যা অনেক মানুষ সম্মুখীন হন| এই পাকস্থলীর আলসার হল খোলা ঘা বা গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল নালীর উপর ক্ষয়| যন্ত্রণাদায়ক ঘা নিয়মিত মদ্যপান, ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ, ইমিউন অস্বাভাবিকতা এবং আস্পিরিন ও ইবুপ্রফেনের মত নির্দিষ্ট ঔষধের কারণে সৃষ্টি হয়|

বিশেষজ্ঞরা বলেন যে এই বেদনাদায়ক আলসার সাধারণত ঘটে যখন হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড পাচক তরলে এবং পেটের এনজাইম পেপসিন, গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল নালীর ক্ষতি করে| এই বেদনাদায়ক পাকস্থলীর আলসার নিরাময় করতে ঘরোয়া প্রতিকার আছে যা মুহূর্তে আপনার আরোগ্যে সাহায্য করতে পারে|

এই পাকস্থলীর আলসার যা গ্যাস্ট্রিক আলসারও বলা হয়, যদি গ্রহণীতে হয় তাহলে তা গ্রহণীসংক্রান্ত আলসার হিসাবে পরিচিত| গ্যাস্ট্রিক এবং গ্রহণীসংক্রান্ত আলসার একসঙ্গে পেপটিক আলসার বলে উল্লেখ করা হয়|এই বেদনাদায়ক সমস্যা নিরাময় করার জন্য, প্রাকৃতিক ঘরোয়া প্রতিকারগুলি দেখে নিন|

মেথি পাতা:-পাকস্থলীর আলসার নিরাময় করতে এক কাপ জলে মেথি পাতা ফোটান| এক চিমটি লবন যোগ করুন| দিনে দুবার এই উষ্ণ জলটি পান করুন পেট সুস্থ করার জন্য|

বাঁধাকপি:-বাঁধাকপির রস পেটের আস্তরণ জোরদার করবে এবং স্বাভাবিকভাবেই আলসার নিরাময় করতে সাহায্য করবে| এই রস প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে পান করুন|

কলা:-কলা, পেটের আলসারের জন্য ভাল| এতে ব্যাকটেরিয়ারোধী পদার্থ আছে যা স্বাভাবিকভাবেই পেটের আলসারের বৃদ্ধি মন্দীভূত করে|

মধু:-মধু পাকস্থলীর প্রদাহ হ্রাস করার জন্য উত্তম উপাদান| এছাড়াও মধু অন্যান্য রোগ রোধ করতে সাহায্য করে| অতএব, সকালে আপনার ব্রেকফাস্ট খাবার সঙ্গে এক টেবিল চামচ কাঁচা মধু খেয়ে নিন|

রসুন:-পাকস্থলীর আলসারে ভুগছেন, প্রতিদিনের আহারে রসুন যোগ করুন পেটের প্রদাহের থেকে আরাম পেতে|

লঙ্কা:-ঝাল লঙ্কা আলসার প্রতিরোধ করে এবং পরিত্রান পেতেও সাহায্য করে| লঙ্কা একটি কার্যকরী ঘরোয়া প্রতিকার যা পাকস্থলির ভিতরের ব্যাকটেরিয়াকে নিধন করে|

ভিটামিন ই সমৃদ্ধ খাবার:-ভিটামিন ই সমৃদ্ধ খাবার হল সেরা ঘরোয়া প্রতিকার পাকস্থলীর আলসারের চিকিৎসার জন্য| কাজুবাদাম এবং মাছের মত ভিটামিন ই সমৃদ্ধ খাবার খেতে থাকুন|

নারকেলের জল:-নারকেলের জল পেট ঠান্ডা রাখে, বিশেষ করে যখন আপনি আলসার সংক্রমিত হন| নারকেল জলে উপস্থিত বৈশিষ্ট্য, পেটের আরোগ্য এবং প্রদাহ কমাতে সাহায্য করবে|

নারকেল তেল:-নারকেল তেলে আন্টি-ব্যাকটেরিয়া বৈশিষ্ট্য আছে যা পেটের আলসার ঘটায়, এমন ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করে| উদ্ভিজ্জ তেল এড়িয়ে চলুন এবং আপনার খাবারের মধ্যে নারকেল তেল ব্যবহার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button