আর্থিক উন্নতি ঘটাতে ও কষ্ট দূর করতে প্রতি সোমবার মহাদেবের পূজো করুন ৫ মিনিটে এইভাবে.. তাতেই সন্তুষ্ট হবেন তিনি..

হিন্দু শাস্ত্র অনুসারে সপ্তাহের প্রতিটি দিন কোনও না কোনও দেব-দেবীর আরাধনা করার দিন রয়েছে। যেমন সোমবার শিব ঠাকুরের আরাধনা করার দিন। এই সোমবার সঠিক নিয়ম মেনে দেবাদিদেবের অরাধনা করলে সর্বশক্তিমান এতটাই প্রসন্ন হন যে সুখে-শান্তিতে ভরে ওঠে জীবন। সেই সঙ্গে খারাপ শক্তির প্রভাবে কোনও দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা যেমন মুক্তি পাওয়া যায়। মহাদেবের আশীর্বাদে আর্থিক অবস্থারও উন্নতি হয়ে উঠতে সময় লাগে না। শুধু তাই নয়, মেলে আরও অনেক ধরনের উপকার। যেমন ধরুন শিব ঠাকুরের কৃপায় মনের জোর বাড়ে, রোগ-ব্যাধি থেকে মুক্তি পাওয়া যায় এবং লোকের কু-নজরের কারণে কোনও ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাও আর থাকে না। তবে এতসব উপকার পেতে গেলে যে প্রথমে শিব ঠাকুরকে প্রসন্নতা লাভের প্রয়োজন। আর এই কাজটি করবেন কীভাবে?

মহাদেবকে খুশি করার অনেক রাস্তা রয়েছে। তবে সহজ রাস্তাটির যদি খোঁজ পেতে চান, তাহলে চোখ রাখতে হবে এই প্রবন্ধে। আসলে এই প্রতিবেদনে মাত্র পাঁচ মিনিটে শিবকে কীভাবে প্রসন্ন করা যেতে পারে, সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হল নিম্নে..আসুন জেনে নেওয়া যাক একে একে। উল্লেখ্য, এই পাঁচ মিনিটের প্রার্থনাটি শুরু করার পর প্রতিটি মিনিটে যে যে উপাচারগুলি মেনে মহাদেবের অরাধনা করতে হবে সেগুলি হল…

১) প্রথম মিনিটেঃ সোমবার সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠে স্নান সেরে শুদ্ধ বসন পরে শিব ঠাকুরের ছবি বা মূর্তিটা প্রথমে গঙ্গা জল দিয়ে ভাল করে মুছে নিতে হবে। তারপর শুরু করতে হবে অরাধনা। প্রথম মিনিটে দেবকে প্রণাম করে এক মনে শিব ঠাকুররে নাম জপ করতে হবে। এমনটা করলে জীবন পথে চলতে চলতে সামনে আসা নানাবিধ সমস্যার পাহাড় সরে যেতে শুরু করবে। ফলে হারিয়ে যাওয়া মানসিক শান্তি ফিরে আসতে দেখবেন সময় লাগবে না।

দ্বিতীয় মিনিটেঃ পরের মিনিটে ধূপ কাঠি জ্বালিয়ে দেবের মূর্তি বা ছবির চারপাশে ৯ বার চক্কর কাটতে হবে। শাস্ত্র মতে এই উপাচারটি মেনে দেবের আরাধনা করলে নাকি বৈবাহিক জীবন খুব সুন্দর হয়ে ওঠে নানাবিধ সমস্যার সমাধান পেতে যেমন সময় লাগে না। সেই সঙ্গে পরিবারে সুখ-সমৃদ্ধির ছোঁয়া লাগে। ফলে গৃহস্তের অন্তরে সুখের এক গভীর আনন্দ হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা যায় কমে।

তৃতীয় মিনিটেঃ শিবের পুজোর তৃতীয় ধাপে অর্থাৎ তৃতীয় মিনিটে দেবের সামনে ৯ টি বেল পাতা রেখে এক মনে ‘ওম নম শিবায়’, মন্ত্রটি জপ করতে হবে। এই মন্ত্রটি ১০৮ বার পাঠ করলে মন শান্ত হবে, দুঃশ্চিন্তা দূর হবে এবং বাবা-মা হয়ে ওঠার স্বপ্ন পূরণ হতেও দেখবেন সময় লাগবে না। প্রসঙ্গত, শিব ঠাকুরঘরে আরাধনা করার সময় বেল পাতা নিবেদন করা কেন হয়, সে সম্পর্কে যদি জানতে হয়, তাহলে পরের প্রতিবেদনে অবশ্যই নজর রাখবেন।

৪) চতুর্থ মিনিটঃ বেল পাতা নিবেদন করে এক মিনিট শিব মন্ত্রটি জপ করার পর ধীরে ধীরে ঠান্ডা জল অথবা দুধ দিয়ে শিব লিঙ্গকে স্নান করাতে হবে। এমনটা ১ মিনিট ধরে করলেই দেখবেন দেব খুব প্রসন্ন হবেন! কারণ শাস্ত্র মতে প্রতি সোমবার শিব লিঙ্গকে ঠান্ডা দুধ অথবা জল দিয়ে স্নান করালে সর্বশক্তিমান এতটাই প্রসন্ন হন যে পরিবারের প্রতিটি সদস্যের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি ঘঠতে সময় লাগে না। সেই সঙ্গে মন এবং শরীর হয় সুস্থ ও স্বাভাবিক।

৫) পঞ্চম অর্থাৎ শেষ মিনিটঃ মহাদেবকে স্নান করানোর পর প্রদীপ এবং ধূপ-ধুনো জ্বালিয়ে দেবাদিদেবের আরতি করতে হবে। এমনটা করলে দেখবেন যে কোনও অর্থনৈতিক সমস্যা গুলি থেকে মুক্তি পাবেন। সেই সঙ্গে আর্থিক উন্নতি ও ঘটবে আপনার জীবনে। কোনো অর্থ কষ্ট থাকবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button