মাত্র 14 বছর বয়সে ইন্টারনেটকে হাতিয়ার করে 4 মাসে যে ভাবে 18 লাখ টাকা উপার্জন করলেন এই তরুণ

পয়সা উপার্জন করতে কে না চায়, সবাই টাকার পেছনে ছোটে, কারণ টাকা দিয়ে পৃথিবীর সব কেনা যায় এমন ধারণা সবাই রাখেন। কেউ কঠোর পরিশ্রম করে টাকা উপার্জন করে আবার কেউ সামান্য পরিশ্রমে কয়েক কোটি টাকা রোজগার করতে পারেন। সম্প্রতি একটি ঘটনা সামনে এসেছে যেখানে 14 বছরের একটি ছেলে 4 মাসে 18 লাখ টাকা ইন্টারনেট থেকে উপার্জন করেছে। যার কারনে সে আজকাল ইন্টারনেটে বেশ পরিচিত হয়ে উঠেছে।

তার দেখাদেখি অনেকেই ইন্টারনেটের দুনিয়ায় নানা ধরনের পথ খুঁজতে শুরু করেছেন, গুগল বা ইউটিউবে এমন অনেক পদ্ধতি রয়েছে যেখান থেকে আপনি অর্থ উপার্জনের উপায় সম্পর্কে জানতে পারবেন। যদিও কিছু পদ্ধতি কার্যকর প্রমাণিত হয় না।

হরিয়ানার এই 14 বছরের ছেলেটির গল্প ছিল এইরকম, তার ছোটখাটো প্রয়োজন মেটানোর জন্য যখন সে ইন্টারনেটে সার্চ করলো কিভাবে ঘরে বসে টাকা আয় করা যায়? এবং সে কয়েকটি উপায় বের করল।

শুভম নামের এই ছেলেটি গুগলে সার্চ করেছিলেন। শুভম বলেছেন, লকডাউনে তিনি ফ্রি ছিলেন এবং স্কুলগুলো বন্ধ ছিল, তাই সে গুগলে অনুসন্ধান শুরু করে টাকা আয়ের উপায় নিয়ে। তারপর তার মাথায় এলো এক বছরে কোটি টাকা আয় করার কোন উপায় আছে নাকি! সে এভাবে গুগল সার্চ করতেই তার সামনে একটি পোস্ট আসে।

যে কোম্পানি থেকে পোস্টটি করেছে তার নাম ওয়েহয়ে! এই কোম্পানির কথা বলতে তিনি বললেন যে, এটা একটি ই-কমার্স কোম্পানি এবং এখান থেকে পণ্য কিনে অন্যদের সাথে শেয়ার করে সে টাকা পেতে পারেন।

শুরুতে তিনি নিশ্চিত ছিলেন না যে, তিনি এই কাজটি করতে পারবেন! তিনি ভেবেছিলেন এইভাবে মাসে যদি তিনি 2,000-3,000 টাকা আয় করেন, তবে এটি তার জন্য অনেক বড় বিষয় হবে। ইতিমধ্যে নিজের জন্য কিছু কেনাকাটা করেছেন এবং তারপরে কিছু বন্ধুদের একটা গ্রুপের মধ্যে করেছেন অ্যাড করেছেন। তারপর তিনি ফেসবুক গ্রুপে পণ্যটি শেয়ার করেন এবং একটু সাড়া পেয়েই বাবার সঙ্গে এই বিষয়ে কথা বলেন তিনি।

শুভম জানান, শুরুতে তার বাবা তার কথাকে সিরিয়াসলি নেন নি, কিন্তু যখন সে বললো যে, তার কিছু টাকা আয় হয়েছে এবং তার কোনো ব্যাংক একাউন্ট ছিল না। এর জন্য সে তার বাবার ব্যাংক একাউন্টে টাকা পাওয়ার জন্য কোম্পানিতে দিয়েছিল। তখন শুরুতে তার আয় ছিল 8,700 টাকা।

আপনি যদি কোম্পানিতে জয়েন না করে ব্যবসা করতে না চান তাহলে এখনি অন্যান্য ওয়েবসাইটের মতো এখান থেকেও কেনাকাটা করতে পারেন, এছাড়াও আপনি সস্তায় পণ্য পাবেন এবং কোম্পানির পক্ষ থেকে এখন ক্যাশব্যাক দেওয়া হচ্ছে। অ্যামাজন এবং ফ্লিপকার্ট এর মতনই এটিও একটি ই-কমার্স সংস্থা এবং জেতার মুনাফার 1% তার ক্লায়েন্টের সাথে ভাগ করে নেন। প্রতিষ্ঠানের দাবি এখনও পর্যন্ত কয়েক হাজার মানুষকে লাখের উপরে তারা পরিশোধ করেছেন। এছাড়াও আপনি বিজনেস এর উপরের ওয়েবসাইটে এই কোম্পানির বিবরণ পড়তে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button