মাত্র সাড়ে তিন বছর বয়সে মোটরসাইকেল চালিয়ে তাক লাগিয়ে দিলো শিশুটি, ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়ের গতিতে ভাইরাল

সাড়ে তিন বছর বয়সে এরকম কেরামতিতে হতভম্ব সকলেই!! বাংলাদেশের এই মোটরসাইকেল মাস্টারের সাথে পরিচয় ঘটল সমস্ত সোশ্যাল প্রেমীদের, তাই মিডিয়ায় তাঁকে নিয়ে হইচই হবে সেটাই স্বাভাবিক, কারণ বয়সটাই যে এক রত্তি, যে বয়সে বাচ্চারা খেলাধুলা করে বেড়ায়, মায়ের কোল ছাড়া কিছু জানে না, কিন্তু এই বয়সেই তাঁর এহেন আশ্চর্যজনক কাণ্ডকারখানায় অবাক মিডিয়ার সকলেই।

কিন্তু কি এমন ঘটল যার জন্য রাতারাতি সে এতটা খ্যাতি অর্জন করল? বাচ্চাটির নাম সাজিম, বাংলাদেশের যশোরের বারীনগর গ্রামের বাসিন্দা, শহিদুল ইসলাম লিখন ও ফৌজিয়া আক্তারের ছেলে সাজিম। এত ছোট বয়সেই এত পটুতার সাথে মোটরসাইকেল চালানো এক আশ্চর্যজনক বিষয়। এই বয়সেই সে পালসার, ইয়ামাহা, টিভিএস, ডন আরও বিভিন্ন ধরনের বাইক চালাতে সক্ষম।

তবে অত্যন্ত সতর্কতা অবলম্বন করেন তাঁরা প্রত্যেকে, তবে সাজিমের বাবার অগাধ স্বপ্ন তাঁর ছেলেকে নিয়ে। এমনকি মায়েরও স্বপ্ন ছেলে অনেক বড় হবে এমন কিছু কাজ করে দেখাবে যা বাংলাদেশের গর্ব হবে তার ছেলে, এমনকি তার মায়ের কথায় জানা যায় যে পরিবারের তাঁর মেয়ে ছেলে প্রত্যেকেই মোটরসাইকেল চালাতে পটউ।তবে মাত্র সাড়ে তিন বছর বয়সে শুধুমাত্র বাইসাইকেল চালানো নয় বিভিন্ন রকম স্টান্ড এবং কেরামতিও করে দেখাতে পারে তাঁর ছেলে। তাঁর দিদিরাও তার ভাইকে নিয়ে যথেষ্ট গর্বিত, কারন এতো কম বয়সে একটা প্রাপ্তবয়স্ক লোকের সমানই যে তার ভাই বাইক চালাতে সক্ষম।

বাবারও অগাধ ভরসা বিশ্বাস তার ছেলের প্রতি কারণ তিনিও এ ধরনের স্টান্ট করতে অভ্যস্ত, তাই তার ছেলেও পারবে এটাই তাদের বিশ্বাস। এই ধরনের প্রতিভা যে বাংলাদেশের বুকে রয়েছে তা আমরা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যম না থাকলে জানতেই পারতাম না, এই সোশ্যাল মিডিয়ার মতো এত বড় প্ল্যাটফর্ম আছে বলেই প্রতিনিয়ত আমরা ট্যালেন্ট কে খুঁজে পাচ্ছি, তাঁরা পরিচিত হচ্ছে সকলের কাছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button