বিয়েতে মেয়ে বাবার মৃ-ত্যুর আগের লিখে যাওয়া শেষ চিঠি কথাগুলো ওড়নাতে লেখালেন, কি লেখা ছিল জানলে আপনি অবাক হবেন

প্রতিটি মেয়েই তার বাবার কাছে প্রিয়, তার বাবা তার কাছে অনুপ্রেরণা। তার মেয়ে তার বাবার কাছ থেকে অনেক কিছু শেখে। তারপর যখন মেয়ে বড় হয় এবং তার বিয়ে হয় তখন সে তার বাবাকে সবচেয়ে বেশি মিস করে শ্বশুরবাড়িতে। বিবাহে কন্যাকে পিতা কর্তৃক দান করা হয় এবং বাবার পাশে দাঁড়িয়ে কাঁদতে থাকে তার মেয়ে।

তবে এই সুখ সবাই পায়না। কিছু মেয়ের বাবা তাদের বিয়ের আগেই পৃথিবীকে বিদায় জানায়। একই ঘটনা ঘটেছে সুবন্যা নামের একটি মেয়ের সঙ্গে। সম্প্রতি, রাজস্থানে ডেস্টিনেশন ওয়েডিং করেছেন সুবন্যা এবং এই সময়ে, তিনি সাধারণ লেহেঙ্গা এবং সাধারন গয়না পরে হাজির হন।

তার পরনে ছিল সাধারণ লাল লেহেঙ্গা। সাথে একটি স্লিভলেস ব্লাউস পরেছিলেন তার ওপর লাল রঙের নেটের ওড়না ছিল। তার পোশাক দেখতে খুব সাধারন ছিল কিন্তু এটি বিভিন্ন দিক থেকে বিশেষ ছিল। আসলে সুবন্যা তার বিয়ের পোশাকে যে ওড়না পরেছিলেন তাতে তার বাবার শেষ নিদর্শন বাঁধা ছিল।

মৃ_ত্যুর আগে মেয়ের জন্মদিনে আবেগঘন চিঠি দিয়েছিলেন সুবন্যার বাবা। চিঠিটি তিনি নিজের হাতে লিখেছিলেন। এমন পরিস্থিতিতে, বিয়ের সময় সুবন্যা চিঠির কিছু অংশ ওড়নায় সূচিকর্ম করে ডিজাইন করিয়েছেন। প্রায় দেখা গেছে যে, মেয়েরা তাদের বিবাহকে বিশেষ করে তুলতে ডিজাইনার এবং দামি লেহেঙ্গা পরে।

কিন্তু ওড়নায় সুবন্যা বাবার লেখা চিঠি পেয়ে সাধারণ পোশাকটিকে খুব বিশেষ করে তুলেছেন এবং তার চিন্তা-ভাবনা এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশংসিত হচ্ছে। সবাই তার পোশাক নিয়ে আলোচনা করছে। তার এই বিশেষ লেহেঙ্গা ডিজাইন করেছেন ডিজাইনার সুনয়না খেরা।

এর ওড়না এমব্রয়ডারি করে বাবার চিঠি ডিজাইন করে এরকম শ্রদ্ধা জানিয়েছেন সুবন্যা এবং এটি তার বিয়ের দিনটিকে আরও বিশেষ করে তুলেছে। সুবন্যার প্রতিটি মুহূর্তে মনে হয়েছিল তার বাবা তার সাথেই আছে। সুবন্যার বিয়ের একটি ভিডিও সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাইরাল হয়েছে, যা আপনি এখানে দেখতে পারেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় যখন লোকেরা সুবন্যার সম্পর্কে জানতে পেরেছিল, তখন তারা প্রশংসার বর্ষণ করেছিল। তার কমেন্ট বক্সে একজন ব্যবহারকারী, “ঈশ্বর সবাইকে এমন একটি কন্যা দিক” লিখেছে। তারপর আরেকজন বলেছে, “কন্যা পাওয়া খুব ভাগ্যের ব্যাপার।” এরপর একজন লিখেছেন, “আপনার প্রয়াত বাবার প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর এটাই সেরা উপায়।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button