বাদাম বিক্রেতার 25 টাকার ঋণ শোধ করতে আমেরিকা থেকে ভারতে এসেছিলেন এই ভাই-বোনেরা , তার আসল কারণ জানলে চমকে যাবেন

আমেরিকাতে থাকা এন আর আই ভাই বোন ভারতে এসে নিজেদের 25 টাকার ঋণ শোধ করে। 2010 সালে এই ভাই বোন অন্ধ্রপ্রদেশের এক চিনাবাদাম বিক্রেতার কাছে 25 টাকার চিনাবাদাম ধারে নেয়। এত বছর পর তারা ভারতে ফিরে সেই চিনাবাদাম বিক্রেতাকে 25 হাজার টাকা দিয়ে তাদের ঋণ শোধ করে। এই ভাই বোনের জুটির ছবি তুমুল হারে ভাইরাল হচ্ছে।

তাদের নাম নেমানি প্রণব ও সুচিতা। তারা জানায় 2010 সালে অন্ধ্রপ্রদেশের ইউ কোথাপল্লী বিচে বাবা মোহনের সাথে ঘুরতে যায়। কিছুক্ষণ ঘোরার পর খিদে পেলে তারা চিনেবাদাম বিক্রেতা সত্যকে দেখেন। নেমানি ও সুচিতার বাবা সত্য-র কাছ থেকে চিনেবাদাম কেনেন। কিন্তু টাকা দেওয়ার সময় তিনি খেয়াল করেন পার্স ফেলে এসেছেন। এই কথা সত্য কে জানালে তিনি তাদের থেকে কোন টাকা নেন না এবং এই নিয়ে কোন প্রশ্নও করেন না।

সেদিন মোহন সত্যকে কথা দেন তার প্রাপ্য টাকা শীঘ্রই তিনি দিয়ে দেবেন। কিন্তু নিজের এই কথা মোহনবাবু রাখতে পারেন নি। কারণ তারা এন আর আই ছিলেন, তাই কিছুদিন ভারতে ঘুরে তাদের আমেরিকা ফেরত যেতে হয়েছিল। তারা সেইসময় সত্যর একটি ছবি তুলে নিয়েছিলেন।

প্রায় 11 বছর পর মোহনের ছেলে নেমানি ও মেয়ে সুচিতা ভারতে আবার আসে। ভারতে আসার পর তাদের সত্যর কথা মনে পড়ে। মোহনবাবুও চাইছিলেন সত্য-র টাকা ফেরত দেওয়ার। তাই তিনি কাকিনাড়া শহরের বিধায়ক চন্দ্রশেখর রেড্ডির সাথে কন্টাক্ট করেন ও সত্যর ব্যাপারে জানান। চন্দ্রশেখর রেড্ডি তাকে কথা দেন সত্যকে খুঁজে দেওয়ার। সেই অনুযায়ী তিনি চেষ্টা শুরু করেন।

সত্যকে খোঁজার উদ্দেশ্যে বিধায়ক চন্দ্রশেখর রেড্ডি একটি ফেসবুক পোস্ট করেন। এরপর সত্যর গ্রামের কয়েকজন লোক এসে জানান যে সত্য আর জীবিত নেই। এই কথা জানার পর মোহনবাবু ও তার দুই ছেলেমেয়ে কষ্ট পান। আর তারা সিদ্ধান্ত নেন সত্য-র পরিবারকে 25000 টাকা দেওয়ার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button