বাড়ি বাড়ি খবরের কাগজ দিত এই ব্যক্তি, সে এখন ৮ টি রেস্তোরাঁর মালিক। কিভাবে হল জানলে অবাক হয়ে যাবেন!

প্রত্যেক ব্যক্তিই বড় হয়ে ওঠার স্বপ্ন দেখে। কিন্তু প্রতিটি ব্যক্তি তাদের স্বপ্ন পূরণ করতে পারেন না। আপনি আজ পর্যন্ত অনেক লোককে দেখেছেন, যে কিনা একটি সাধারণ নাগরিক থেকে উঠে দাঁড়িয়ে আজ দেশ বিদেশগুলিতে যাচ্ছে।উদাহরণ হিসাবে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কথা বলুন। এক সময়ে, চা বিক্রি করে বাড়ি চালাতেন নরেন্দ্র মোদি এখন পুরো দেশের শক্তি চালাচ্ছেন। তাই কেউ সত্য বলেছে যে “যারা চেষ্টা করে তারা কখনো পরাজিত হয় না”। যে কেউ হৃদয় এবং আবেগ দিয়ে কঠোর পরিশ্রম করে থাকে,তারা জীবনে কখন ব্যর্থ হতে পারে না। আজ আমরা আপনাকে এমন একজন ব্যক্তির সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি, যিনি দুই টাকায় সংবাদপত্র বিক্রি করতে শুরু করেছিলেন কিন্তু আজ তিনি কোটি কোটি সম্পত্তির মালিক।
যদিও আপনি এই ঘটনাটিকে মিথ্যা ভাবছেন তবুও আপনার তথ্যের জন্য, আমরা আপনাকে বলে ফেলি এই ঘটনাটি সম্পূর্ণ সত্য ঘটনা। এই গল্পটি আসিফ আহমেদ, যিনি চেন্নাইয়ের পলভারামের খুব দরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

এক সময় তিনি সংবাদপত্র বিক্রি করতেন এবং তার দরিদ্র পরিবারের জন্য খাদ্য জোগাড় করতেন। এক সময় তার কাছে এত অল্প টাকা ছিল যে, তাকে রাতে না খেয়েও ঘুমাতে হত। কিন্তু আসিফ আহমেদ কখনোই হার মানেনি এবং সবসময় এগিয়ে যাওয়ার কথা ভেবেছেন। টাকা আয় করতে সংবাদপত্রের কাজ ছেড়ে দিয়ে আসিফ স্যান্ডেল এবং জুতা জুতা ইত্যাদি বিক্রয়ের কাজ শুরু করেন। প্রথমদিকে যদিও তার এই ব্যবসা বেশ ভালই চলে।

কিন্তু পরে ঘাটতি বেড়ে যায় এবং উপার্জন কমে যায়। এভাবেই সময় অতিবাহিত হতে থাকে এবং আসিফ এই কাজ করা বন্ধ করে দেয় এবং বিয়ে বাড়িতে গিয়ে বিরিয়ানি তৈরীর কাজ শুরু করে। এই কাজে তিনি কিছু অর্থ উপার্জন করতে শুরু করেন, তারপরে তিনি তার স্বপ্ন পূরণের জন্য মুম্বাই চলে যান। মুম্বাইকে স্বপ্নের শহর বলা হয়, কিন্তু এখানে দৈনন্দিন মানুষ তার স্বপ্ন পূরণ করার ইচ্ছা নিয়ে আসে কিন্তু খুব কম লোকই আছে যারা স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করে।

উল্লেখ্য যে, আসিফ যখন মুম্বাইয়ে এসেছিলেন, তখন তার পকেটে মাত্র 4 হাজার টাকা ছিল। কিন্তু তিনি কখন ফিরে তাকান নি এবং ওই একই টাকা দিয়ে রাস্তায় ঠেলা গাড়ি করে বিরিয়ানি বিক্রি করতে শুরু করে। মুম্বাইয়ের লোকরা তার বিরিয়ানির স্বাদের সাথে বেশ প্রভাবিত হয় এবং ধীরে ধীরে তার আয় বাড়তে শুরু করে।

যখন আসিফ ব্যবসায়ে লাভ লাভ করতে শুরু করেন, তখন তিনি একটি ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণ করেন এবং নিজের বিরিয়ানির একটি আউটলেট খুলেন। এর পর তিনি সাফল্যের সিঁড়ির উপর আরোহণ করেন এবং ভাগ্য পরিবর্তন করেন এবং আজ তাঁর বিরিয়ানির ব্যবসায়ের কারণে তিনি ৮ টি রেস্তোরাঁ এবং কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক। আসিফ আহমেদ আজকের তরুণ প্রজন্মের জন্য একটি উদাহরণ হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে, যিনি তার কঠোর পরিশ্রম এবং সাহসের পরিচয় দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button