বাড়ির দলিল বন্দক রেখে ছেলের পড়ার খরচ চালিয়েছেন মা , আজ ছেলে IAS অফিসার

ইচ্ছে থাকলে সব কিছু সম্ভব হয় জীবনে। আজ কথা বলব রাজেশ পাতিল নামে একজন ব্যক্তির, যিনি বর্তমানে মহারাষ্ট্রের পৌর কর্পোরেশনের কমিশনার। জলগাঁও জেলার একটি দরিদ্র পরিবারে জন্ম হয়েছিল তার। এতটাই নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম হয়েছিল তার যে, শৈশব থেকেই গৃহস্থালির সমস্ত কাজ করতে হতো তাকে। তিন ভাইবোনের মধ্যে তিনি কনিষ্ঠ। চাষবাসের কাজে পিতা এবং মাতার সঙ্গে সাহায্য করতে হত তাকে।

পরিবারের আয় তেমন না থাকার জন্য স্কুল ছেড়ে মাঠে কাজ করতে হত তাকে। পড়াশোনায় ভালো হলেও কর্মস্থলে অনেকক্ষণ সময় ব্যয় করে ফেলার ফলে তার পড়াশোনা সেইভাবে এগোত না। ছোটবেলা থেকেই তিনি বুঝতে পারতেন দারিদ্র্যতার থেকে বেরিয়ে আসা একমাত্র পথ শিক্ষা। তাই যতই ক্লান্ত হয়ে যাক না কেন তিনি সবসময় পড়াশোনা করতে পিছুপা হতেন না। এই কাজে তিনি সহায়তা পেয়েছেন তার মায়ের।

এক সময় প্রবল দারিদ্র্যে সময় কাটলেও যখন তিনি কঠোর পরিশ্রম করে সরকারি চাকরি পেয়েছেন তখন তার জীবনের সমস্ত স্বপ্ন পূরণ করার সুযোগ পেয়েছেন তিনি। বর্তমানে তিনি তার মায়ের এবং বোনেদের স্বপ্ন পূরণ করার জন্য অনবরত কষ্ট করে থাকেন। এই গল্পটা আরো একবার স্পষ্ট প্রমাণ করে দেয় যে, যদি আপনি সঠিকভাবে নিজের লক্ষ্য স্থির করতে পারেন এবং অধ্যাবসায় থাকে আপনার মধ্যে, তাহলে কোন পরিস্থিতি আপনাকে আর আটকে রাখতে পারবে না। একদিন না একদিন জয় নিশ্চিত হবে আপনার।।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button