নীল কমল কোম্পানি শুরু হয়েছিল বোতাম বানানো দিয়ে, আজ 123 কোটির টার্নওভার। ভারতের জনপ্রিয় চেয়ার কোম্পানির এত সাফল্যের আসল কাহিনী বেরিয়ে এলো ।

বর্তমান সময়ে অনেক ধরনের ফার্নিচার মার্কেট লঞ্চ হয়েছে। এইসব ফার্নিচারের দাম যেমন বেশি হয় তেমনই এইসব ফার্নিচারের দেখাশোনাও বেশি করতে হয়। কিন্তু একটা সময় ছিল যখন নীলকমল ফার্নিচার মার্কেটে ছেয়েছিল। আজ আমরা আপনাদের এই ফার্নিচার কোম্পানির ব্যাপারে বলব।

নীলকমল ফার্নিচার সবথেকে টেকসই চেয়ার ও টেবিল বানিয়ে থাকে। বর্তমানে অনেকেই নীলকমলের নাম করে অথবা নীলকমল নামের সাথে একটু বদল ঘটিয়ে একই ধরনের চেয়ার-টেবিল মার্কেটে লঞ্চ করা শুরু করেছে। কিন্তু এত করেও তারা নীলকমল ফার্নিচারকে টক্কর দিতে পারেনি।

মানুষের মনে ভরসার জায়গা তৈরি করেছে এই কোম্পানি। এই কোম্পানি প্রথমে বোতাম বানানো দিয়ে নিজেদের ব্যবসা শুরু করে। এই ব্যবসা ব্রিজলাল ব্রাদার্স নামে প্রথম শুরু হয়। তারা এই ব্যবসা গুজরাটে শুরু করেছিলেন। কিন্তু একজন বিজনেস পার্টনার তাদের হাত ছেড়ে দেওয়ায় বাধ্য হয়ে তাদের মুম্বাইতে বিজনেস শুরু করার জন্য আসতে হয়।

দুই ভাই কিছু রিসার্চ করার পর বোতাম বানানোর কাজ শুরু করেন। বোতাম বানানোর জন্য তারা প্রথমে একটি মেশিনও কিনে ছিলেন। কিছু সময় পর তারা বুঝতে পারেন যে এই ব্যবসায় তাদের লোকসান হচ্ছে। এছাড়াও তাদের কোম্পানি নতুন হওয়ায় সেই ভাবে মার্কেটও তারা পাচ্ছিলেন না। এই কারণে তারা ব্যবসায় কিছু বদলের চেষ্টা করেন।

এর আগে মেটাল অর্থাৎ ধাতুর বোতাম ভারতীয় মার্কেটে চালু ছিল। এই বোতাম ভারী হওয়ার পাশাপাশি দামেও বেশি ছিল। ব্রিজলাল ব্রাদার্সের প্লাস্টিকের বোতাম মার্কেটে আসার পর তা বেশ পপুলার হয়ে যায় এবং ধীরে ধীরে তারা লাভের মুখ দেখতে থাকেন। এরপর তাদের মধ্যে কনফিডেন্স আসে এবং তারা অন্যান্য ব্যবসার কথা ভাবতে থাকেন।

এরপর তারা বোতাম এর পাশাপাশি মগ ও কাপ জাতীয় ঘরোয়া জিনিস মার্কেটে লঞ্চ করেন। বর্তমানে এই কোম্পানির এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর হলেন ব্রিজলাল ব্রাদার্সের নাতি মোহিত পিরিখ। মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী 2018 সালে এই কোম্পানির টার্নওভার ছিল 123 কোটি টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button