নার্সিং ছেড়ে এই ফসলের চাষ করে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছে এই তরুণী! রইলো বিস্তারিত

আসামের এই নার্সের কাছ থেকে একজনকে শিখতে হবে কিভাবে নিজের মাটি এবং ক্ষেতকে ভালোবাসতে হয়। আসামের যোরহাট জেলার বাসিন্দা নবনীতা দাস ছোটবেলা থেকেই একজন কৃষক পরিবারের অন্তর্ভুক্ত এবং এই কারণে শুরু থেকেই সে সংযুক্ত ছিল তার ক্ষেত এবং চাষের সাথে। সরকারি নার্সিং প্রশিক্ষণ নিয়েছেন নবনীতা কিন্তু তিনি কখনোই তার পেশাকে ততটা ভালবাসতে পারেননি যখন তিনি কৃষিকাজকে ভালোবাসতেন।

যখন তিনি একটি সরকারি হাসপাতালে নার্স হিসেবে কাজ করতেন তখন তিনি ডিউটির সময় সবুজ ঘাসগুলোকে দেখতেন এবং এই সময় সেই সবুজ ঘাসগুলি তাকে আকর্ষণ করতো। অবশেষে তিনি 2010 সালে তার নার্সিং এর চাকরি ছেড়ে দেন এবং তার সমস্ত হৃদয় দিয়ে জৈব চাষ করা শুরু করেন। তার কঠোর পরিশ্রম এবং নিষ্ঠা এমন রঙ দেখিয়েছে যে সে এখন তার এলাকার একজন নামকরা প্রগতিশীল কৃষক।

এর পাশাপাশি তিনি একটি জৈব খামারের মালকিন। নবনীতা কৃষিকাজে প্রচুর সময় ব্যয় করেছেন। তিনি আসাম কৃষি বিভাগ দ্বারা আয়োজিত 2014 সালে এই বিষয়ে প্রথম আনুষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছিলেন তারপরে তিনি উত্তর-পূর্ব এবং হিমালয় রাজ্যের আর.কে.ভি.ওয়াই আসাম এর হর্টিকালচার মিশনে প্রশিক্ষণে অংশ নিয়েছিলেন। এই প্রশিক্ষনের সাহায্যে গতানুগতিক চাষাবাদের পাশাপাশি মাছচাষ ও পশুপালন শুরু করেন।

এখন নবনীতার চাষের ক্ষেত্র এতটাই বাড়িয়েছে যে তার খামার একটি ছোট কৃষিক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে এবং ঐতিহ্যবাহী ফসলের পাশাপাশি তিনি এখন বিভিন্ন ধরনের ফুল চাষ করেন। কৃষিক্ষেত্রে অবদানের জন্য নবনীতা অনেক পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছেন। তিনি সেই সমাজের চিন্তা ধারা বদলে দিয়েছেন যেখানে শুধুমাত্র পুরুষদের চাষবাসের জন্য যোগ্য বলে বিবেচনা করা হয়। তিনি তার এলাকার অনেক কৃষকের কাছে উদাহরণ হয়ে উঠেছেন। তিনি এই কাজ থেকে শুধু সম্মানই পান না, তিনি এই কাজ থেকে ভালো আয় করছেন বর্তমানে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button