নর্দমার ধার থেকে সদ্যোজাত শিশু কন্যাকে উদ্ধার করে বাড়ি নিয়ে গিয়েছিলেন এই পুলিশ অফিসার …

নবজাতক মেয়েকে ড্রেনে ফেলে দেওয়া হয়েছিল, দেবদূত রূপে এসেছিল সৈনিক এইরূপ ভাবে তার জীবন বাঁচিয়েছিলে।আজ, আমাদের দেশ দিনরাত বিজ্ঞানের দ্বারা উন্নতি করছে। দিন দিন ডিজিটাল ও আধুনিক হয়ে উঠছে। তবে কিছু লোকের চিন্তাভাবনা এখনও পিছিয়ে রয়েছে। তারা এখনও ছেলে এবং মেয়ের মধ্যে পার্থক্য করে থাকে। ফলস্বরূপ, আমরা এরকম অনেকগুলি মামলার কথা শুনতে পাই যখন কোনও কন্যা সন্তান হওয়াতে পরিবারের সদস্যরা তাকে আবর্জনার স্তূপে বা নর্দমার মধ্যে ফেলে দেয়।

এমনই একটি ঘটনা দেখা গেছে উত্তর প্রদেশের বাদাউন শহরে। যেখানে কন্যা সন্তান হওয়াতে কেউ একজন নবজাতক মেয়েটিকে ড্রেনের ভিতরে ফেলে দিয়েছিল। নবজাতক নর্দমায় পড়ে থাকা অবস্থায় পুলিশের সেখানে দেবদূতের মতো পু-লিশ শিশুকন্যাটিকে এগিয়ে বাঁচায়। বাদাউন থানার ঋষি পাল এই ঘটনার খবর পেয়ে তারা তত্ক্ষণাত সেখানে পৌঁছে মেয়েটিকে নর্দমা থেকে তুলে নিয়ে তার কোলে তুলে নেন। এর পরে তিনি নবজাতক কন্যাটিকে হাসপাতালে নিয়ে যান।

ইশ্বরের অসীম কৃপা যে মেয়েটির অবস্থা এখন ভালো এবং সে বিপদের বাইরে। বাডাউন পুলিশ তাদের অফিসিয়াল টুইটার একাউন্টে এই পুরো মা-মলার তথ্য দিয়েছে। এই ভিডিওটি শেয়ার করে তিনি লিখেছেন, বাদাউন থানার পুলিস একজন দেবদূত হিসাবে উপস্থিত হলেন ,” ঋষি পাল একটি ড্রেনে পড়ে থাকা অজানা নবজাতক শিশুটির সংবাদ পেয়ে দেরি না করেই ঘটনাস্থলে পৌঁছে শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান, শিশুটি এখন বি’পদ মুক্ত।

এই টুইটের পরপরই এই সংবাদটি সোশ্যাল মিডিয়ায় আ’গুনের মতো ছড়িয়ে পড়ে। প্রত্যেকেই এ বিষয়ে পুলিশের প্রশংসা করতে শুরু করে। লোকেরাও এই ঘটনা সম্পর্কে তাদের মতামত প্রকাশ করেছে। একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, ” এই পৃথিবীতে না জানে কত রকমের নি’শংস মানুষ আছে যারা কিনা এই ছোট্ট নিষ্পাপ শিশুটির মূল্য দিতে ও জানেনা ফেলে দিয়েছিল নর্দমার মধ্যে সেই মানুষটিকে অসংখ্য ধন্যবাদ যিনি কিনা এই নিষ্পাপ শিশুটির প্রাণ রক্ষা করে একটি জীবন বাঁচানোর জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ পুলিশকে।”

অন্য একজন ব্যবহারকারী মেয়েটিকে অবলম্বন করা পুলিশের বিষয়ে লিখেছেন “ঋষি পালের মতো জওয়ানের প্রতি ইউপি পুলিশ গর্বিত, পুলিশ এবং ঋষি পালকে সালাম।” এর পরে শিব ত্রিপাঠি নামে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন “হৃদয়ের থেকে সালাম স্যার। জন্ম দেওয়া থেকে জীবন রক্ষাকারী অনেক বড়, যে সান্ত্বনা আপনি আজ পেয়েছেন, আজ অবধি আপনি কখনও এরূপ হয়তো পাননি তখন আরেক ব্যক্তি খুশি হয়ে বললেন, ‘জীবন রক্ষাকারী ইউপি পুলিশ জিন্দাবাদ।’ অন্য এক ব্যবহারকারী অরুণ কুমার “লিখেছেন। আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। ইশ্বর তোমার মঙ্গল করুন। “একজন বলে” খুব ভাল। ঋষি পাল, আপনার মতো লোকের কারণে মানবতা আজ বেঁচে আছে। এভাবে ভালো কাজ করতে থাকুন। জয় হিন্দ।

বন্ধুরা, আমাদের বুঝতে হবে একটি ছেলে বা মেয়ের মধ্যে কোন পার্থক্য থাকে না। আপনি যদি কোনও সন্তানের জন্ম দিয়ে থাকেন তবে এটি আপনার দায়িত্ব তাকে লালন-পালন করে বড় করে তোলা। ছেলে এবং মেয়ের মধ্যে নির্বোধ বৈষম্য মস্তিস্ক থেকে ত্যাগ করুন।

আমরা আপনাদের এই ঘটনাটি সম্পর্কে জানাতে চাই যে এই ঘটনাটি ঘটেছিলো দু’বছর আগে। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই খবরটি প্রচুর পরিমাণে ভাইরাল হয় সেই সময় এখনো ভাইরাল হচ্ছে। সমাজের একটি সোশ্যাল পাত্তা প্রেরণ করার জন্য এবং অনুপ্রেরণা পাওয়ার জন্য এই খবরটি আমরা আবার আপনাদের কাছে নতুনভাবে উপস্থাপন করা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button