ছোট বেলায় মহিষ চরাতেন, বাবা পেশায় ক্যাব চালক ! আজ তিনি কঠিন লড়াইয়ে যে ভাবে IAS অফিসার হলেন

মানুষ তার দৃঢ় সংকল্প এবং উৎসাহের মাধ্যমে যেকোনো কাজই সম্পন্ন করতে পারে। প্রতিবছর ইউ.পি.এস.সি পরীক্ষার জন্য লক্ষ লক্ষ পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দেয়। কিন্তু তার মধ্যে কয়েকজনই মাত্রই সফলতা পায়। এই পরীক্ষায় সফলতা না পাওয়ার বড় কারণ এর ইন্টারভিউ পর্বটি। যার কারণে পরীক্ষার্থীরা ঘরে থেকে খাওয়া-দাওয়া সব ভুলে পরীক্ষার প্রস্তুতি নেয়। ইউ.পি.এস.সি পরীক্ষার সাফল্যের জন্য লড়াই এর দৌড়ে প্রতিটি পরীক্ষার্থী নিজের জীবন উৎসর্গ করে দেয়। আবার অনেকের বাড়ির খারাপ অবস্থা, আর্থিক সমস্যার কারণেও সমানতালে লড়াই করতেও সক্ষম হন না।

আজকের এই গল্পটি এমনই একজন প্রার্থীর যিনি তাঁর জীবনের চলমান পরিস্থিতির সাথে লড়াই করে তার স্বপ্নকে সত্যি করেছেন। গল্পটি শুনে হয়ত আপনাদের মনে হবে এটি কোন সিনেমার গল্পের মতো শুনতে হলেও কিন্তু এটি গল্প নয়, এটি গল্প হলেও সত্যি। কেরালার একটি দরিদ্র পরিবারে জন্ম নেওয়া সি. বনমতীর সংগ্রামের গল্প এটি। বনমতী যখন জন্মেছিল তখন কেউ কল্পনাও করতে পারেনি যে এমন পরিবার এবং এমন অবস্থা থেকে বেরিয়ে এসে তাদের পরিবারের মেয়ে একটি সম্মানজনক পদে বিরাজ করবে। বনমতীর বাবা ক্যাব চালাতেন।

বনমতী তার আই.এ.এস হওয়ার সিদ্ধান্তটি সিনেমা এবং বাস্তব জগৎ উভয় থেকেই পেয়েছিলেন। প্রথম মহিলা যিনি বনমতীকে অনুপ্রাণিত করেছিলেন, তিনি হলেন তার নিজের জেলার কালেক্টর এবং দ্বিতীয় মহিলা ছিলেন ‘গঙ্গা-যমুনা-সরস্বতী’ নামে একটি ধারাবাহিকের নায়িকা, যিনি সিরিয়ালে একজন মহিলা আই.এ.এস অফিসার এর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন।

বনমতী কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশন এর সাথে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। 18 বছর হয়ে যাওয়ার পরপরই পরিবার এবং আত্মীয়রা তাকে বিয়ের জন্য চাপ দিতে থাকে। বনমতী তার সিদ্ধান্তে অটল ছিল এবং বিয়ে করতে অস্বীকার করেন।

বনমতী তার প্রথম চেষ্টায় সফল হতে না পারলেও হাল ছাড়েননি এবং বেশি পরিশ্রম করে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন এবং 2015 সালে তিনি আবার পরীক্ষা দেন এবং 152তম স্থান অর্জন করেন।

বনমতী সেই সমস্ত লোকের কাছে একটি অনুপ্রেরণা, যারা পরিস্থিতির চাপে হাল ছেড়ে দেন এবং নিজের স্বপ্নকেও দমিয়ে দেন। বনমতীর মতন মেয়েরা যুবসমাজের জন্য, প্রধানত মেয়েদের জন্য একটি অনুপ্রেরণা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button