কঙ্গনা রানাওয়াতের জন্য অনিল কাপুর পাগল ছিলেন, স্ত্রী সুনিতাকে ছাড়তেও রাজি ছিলেন, সোস্যাল মিডিয়া তোলপাড় এমন খবরে

বলিউডের দিগ্গজ অভিনেতা অনিল কাপুর নিজের মজাদার কথাবার্তার জন্য মাঝেমাঝেই চর্চায় উঠে আসেন। তাঁর অভিনয় নিয়ে কোনো দ্বিমত নেই। কেরিয়ারের এত বছর পরে আজও তিনি ফিটনেসে যেকোনো অল্পবয়সী হিরোকে টক্কর দিতে পারেন। এহেন অনিল কাপুর সম্প্রতি নিজের বয়ানের জন্য চর্চার শিকার হয়েছেন। তিনি এক ইন্টারভিউতে জানিয়েছেন যে বলিউডের অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াতের জন্য নিজের স্ত্রী সুনীতা কাপুরকেও ছাড়তে পারেন।

তিনি এমন কথা করণ জোহরের টক শো “কফি উইথ করণ” এ বলেছিলেন। জানিয়ে রাখি করণ জোহরের এই বিখ্যাত টক শো তে বহু সেলিব্রিটি, ক্রিকেট প্লেয়াররা নিজেদের প্রফেশনাল ও পারসোনাল লাইফ নিয়ে বড়ো বড়ো তথ্য উদঘাটন করেছেন। এই শো-এর একটি এপিসোডে সঞ্জয় দত্ত ও কঙ্গনা রানাওয়াতের সাথে উপস্থিত ছিলেন অনিল কাপুর। সেই সময় উক্ত মন্তব্যটি করে সবাইকে চমকে দিয়েছিলেন তিনি।

আসলে রেপিড ফায়ার রাউন্ডের সময় করণ জোহর অনিল কাপুরকে জিজ্ঞেস করেন “কোন্ মহিলার জন্য আপনি নিজের স্ত্রী-কে পর্যন্ত ছাড়তে পারেন?” তখন অনিল কাপুর মজার ছলে কঙ্গনা রানাওয়াতের দিকে ইশারা করেন। আপনাদের বলে রাখি অনিল কাপুর ও সুনীতা কাপুর ১৯৮৪ সালে সাত পাকে বাঁধা পড়েন। তাঁরা বর্তমানে তিন সন্তানের বাবা-মা। তাঁদের বড়ো মেয়ে সোনাম কাপুর বলিউডের প্রথম সারির অভিনেত্রীদের মধ্যে একজন।

তিনি ২০১৮ সালে দিল্লি নিবাসী বিজনেসম্যান আনন্দ আহুজাকে বিয়ে করেন। বর্তমানে তাঁরা লন্ডনে থাকছেন। অনিল কাপুরের ছেলে হর্ষবর্ধন কাপুরও বর্তমানে বলিউডে কাজ করছেন। সুনীতা কাপুর স্বামী অনিল কাপুর সহ মুম্বাইয়ের জুহু এলাকায় এক বাঙলোতে থাকেন। অনিল কাপুর ১৯৭৯ সালে ফিল্ম “হামারে তুমহারে” তে সাইড চরিত্রে অভিনয়ের মধ্যে দিয়ে বলিউডে ডেবিউ করেন।

এরপর ১৯৮০ সালে “হাম পাঁচ” ও ১৯৮২ সালে “শক্তি” সিনেমায় সাধারণ চরিত্রে অভিনয় করার পর ১৯৮৩ সালে ” বো সাত দিন” সিনেমায় প্রথম লিড রোলে অভিনয় করেন। ২০২০ সালে তাঁর দুটি ফিল্ম মুক্তি পায়- ” এ.কে ভার্সেজ এ.কে” ও “মালাঙ্গ”। বর্তমানে তিনি কিছু আপকামিং প্রজেক্টে কাজ করছেন। যার মধ্যে একটি হলো নীতু কাপুরের বিপরীতে ফিল্ম “যুগ যুগ জিয়ো”।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button